মেনু নির্বাচন করুন

পূর্ববতী মামলার রায়

তারিখঃ ০৫-০৫-২০১৪ইং

বিচার নং-৩৩(০৫)১৪

 মোঃ চাঁন মিয়া                                                                             মোসাঃ সামছুন নাহার

চ-৮৪, উত্তর বাড্ডা,                                                                     স্বামীঃ ফজলুল করীম

বাড্ডা, ঢাকা-১২১২।                                                                     মদিনা টাওয়ার, আলিরমোড়,

বাদী পক্ষ                                                                                   উত্তর বাড্ডা, বাড্ডা, ঢাকা-১২১২।

 

    বাদীপক্ষ গত ০৪/০৫/২০১৩ইং তারিখে বিবাদীর বিরুদ্ধে (ভাড়াটিয়া), জনতা হোটেল ভাড়া চুক্তিপত্র সংক্তান্ত বিষয়ে অত্র পরিষদে একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে অদ্য ০৫/০৫/২০১৪ইং তারিখ শুনানী ধার্য করে উভয় পক্ষিকে নোটিশ করে হাজির করা হয়। অভিযোগটি নিষ্পত্তি কল্পে অত্র পরিষদের সম্মনিত চেয়ারম্যান এলাকার নিন্ম বর্নিত গন্যমান্য ব্যক্তি বর্গদেরকে নিয়ে একটি জুডিবোর্ড গঠন করেন।

ক্রমিক নংবান
০১মোঃ আলী হোসেন
০২মোঃ আবুল হাসেম
০৩মোঃ মিজানুর রহমান ধনু
০৪মোঃ জাহাঙ্গীর রহমান
০৫মোঃ ফরহাদ
০৬মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন
০৭মোঃ আঃ মতন
০৮মোঃ মজিবুর রহমান
০৯মোঃ কামাল

 

    উক্ত ঝুড়ি বোর্ড বিদ্যমান সমস্যাটির বিষয়ে আলোচনা পর্যালোচনা করে সর্ব সম্মতিক্রমে নিন্ম বর্নিত রায় প্রদান করেন। যাহা বাদী বিবাদ উভয় পক্ষ সমৃদ্দচিত্রে মানিয়া নেন।

 

০১।    আগামী তিন মাস আর্থাৎ মে, জুন, জুলাই/১৪ইং পর্যন্ত ভাড়াটিয়া বিবাদীপক্ষ মোসাঃ সামছুন নাহার হোটেল খানা পরিচালনা করেন। আগামী ৩১শে জুলাই/১৪ইং তারিখে মালিকপক্ষ বাদী জবাহ চান মিয়া  সাহেবের অনুকূলে জনতা হোটেল খানা অত্র পরিষদের চেয়ারম্যান সহ ঝুড়ি বোর্ডের উপস্থিত্তিতে বুঝাইয়া দিবেন।

 

০২।   জনতা হোটেল ব্যবহৃত বিদ্যুৎ, গ্যাস, পানির যাবতীয় বিল পরিশোধ করে বিবাদী ভাড়াটিয়াপক্ষ পরিষদের চেয়ারম্যাব সাহেব এর নিকট জমা দিতে বাধ্য থাকবেন।

 

০৩।   অগ্রীম জামানত ১লক্ষ টাকা বিবাদীকে দোকান ছাড়ার পূর্বে বাদী পক্ষ চেয়ারম্যান সাহেব এর নিকট জমা দিবেন।

 

০৪।   আগামী তিন মাসের ভাড়া, প্রতিমাসের ৫ তারিখে বিবাদীপক্ষ চেয়ারম্যাব সাহেব এর নিকট জমা দিবেন এবং বাদীপক্ষ চেয়ারম্যাব সাহেব থেকে ভাড়ার টাকা গ্রহন করবেন।

 

০৫।   ভাড়াটিয়া কর্তৃক হোটেলে সংযোগকৃ্ত বিদ্যুতৎ অ পানির সংযোগ এর খরচ বাবদ বাদীপক্ষ বিবাদীকে ৩০,০০০/= (ত্রিশ হাজার) টাকা প্রদান করেন।

 

০৬।   জনতা হোটেলের বর্তমান স্থাপনা ভাঙ্গা হলে আশে পাশের দোকান ঘাট ক্ষতিগ্রস্তত হবে বিধায় সার্বিক বিবেচনা করে জনতা হোটেলের স্থাপনার মূল্য বিচার বিশ্লেষন করে ১,৩০,০০০/- (এক লক্ষ ত্রিশ হাজার) টাকা নির্ধারন করা হয়। যাহা মালিক বাদীপক্ষ চান মিয়া সাহেব বিবাদীপক্ষকে পরিশোধ করিবেন।

 

০৭।    জনতা হোটেল এ ব্যবহৃত সকল বিলের পরিশোধ যোগ্য মূলকপি অর্থাৎ নো অবজেকশন সার্টিফিকে্ট এবং দোকান সংক্রান্ত যাবতীয় কাগজ এর মূল কপি চেয়ারম্যান সাহেব এর নিকট জমা দিবেন বিবাদীপক্ষ।

 

০৮।   আগামী তিন মাস জনতা হোটেলে মালিক পক্ষের ছেলে মেয়েরা ব্যবসা করতে বিবাদী কে কোন প্রকার বাধা নিষেধ করিতে পারবেন না।

 

    অতপর অত্র পরিষদের চেয়ারম্যান সাহেব সকল কে ধন্যবাদ দিয়ে বিচার কার্য্য সমাপ্তি করেন।